Featured post

About Me

About Dr Sadequel Islam Talukder

Online BMDC Registration, Renewal and Payment click on

Dr. Sadequel Islam Talukder

MBBS, M Phil (Pathology) from Dhaka University

Senior Consultant, Pathology and head, Department of Hospital Clinical Pathology, Community Based Medical College Hospital, Winnerpara, Mymensingh

Ex-Head, Department of Pathology, Mymensingh Medical College

Expert in:

  • Teaching Pathology
  • Practicing Pathology (histopathology and Cytopathology
  • Medical Journal Editing
  • Website development and maintanance
  • Digital Marketing

https://www.prothomalo.com/

আমার ইউটিব চ্যানেল দেখতে নিচের ছবির উপর ক্লিক করুন

Winter Flowers

ছাদবাগানের শীতের ফুল ও সবজি

Borishaler Kohinur

বরিশালের কোহিনূর

ডাঃ সাদেকুল ইসলাম তালুকদার

স্মৃতি কথা

বরিশালের এই কোহিনূরকে আপনারা চিনবেন না। এই কোহিনূর একজন গরীবের মেয়ে। দেখতে ছিল রবি ঠাকুরের গানের কৃষ্ণকলির মতো। তার বাবার কাছে ছিল বৃটিশ মিউজিয়ামে সংরক্ষিত মোগল সম্রাজ্ঞীর ব্যবহার করা পৃথিবীর সবচেয়ে দামী হীরা কোহিনূরের মতো। ত্রিশ বছরেরও বেশী আগে আমার প্রথম পোস্টিং হয়েছিল বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার চরামদ্দি ইউনিয়ন উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে মেডিকেল অফিসার হিসাবে। চিকিৎসা পেশার প্রতি অগাধ শ্রদ্ধা থাকায় দুঃসাহসিক ইচ্ছা নিয়ে আমি সেই গ্রামের জরাজীর্ণ টিনসেড হাসপাতালে গ্রামের মানুষের চিকিৎসা দিতে থাকি। পাশে একটা পরিত্যক্ত সরকারি বাসস্থান ছিল মেডিকেল অফিসারের জন্য। ইতিপূর্বে কোন এমবিবিএস ডাক্তার সেখানে পোস্টিং হয় নি। আমিই প্রথম। ১০০ টাকা দামের চৌকি কিনে সেই বাসাতেই আমি থাকা শুরু করলাম। সাথে একটা রান্নাঘর ছিল। ওটার ভিতর কোহিনূরের বাবা ধানের ক্ষর রেখেছিলেন। আরেকটা বৈঠককখানা ছিল। ওটার ভিতর কোহিনূরের বাবা ধানের আটি রেখেছিলেন স্তুপ করে। বাড়ীর চারিদিকে পরিত্যক্ত সিমেন্টের খুটি ছিল টিনের বেড়ার। কিন্তু টিন ছিল না। একটা কামলা নিয়ে বাঁশ কিনে সেই খুটিতে বাঁশ বেঁধে বাঁশের উপর দিয়ে কলাপাতা ভাজ করে ঝুলিয়ে বেড়া তৈরি করালাম। বাড়ির পশ্চিমপাশ সংলগ্ন একটা বিরাট জমিদারি পুকুর ছিল। খুব স্বচ্ছ ছিল তার পানি। সেই পানিতে জ্যোৎস্নার আলো ঝলমল করতো। রান্নাঘর ও থাকার ঘরের গলি বরাবর পুকুরপাড়ে একটা শানবাঁধানো ঘাট ছিল। এইগুলি চরামদ্দির জমিদারদের ছিল। তারাই প্রজাদের জন্য বৃটিশ আমলে ডিসপেনসারি করেছিল। সেইটাই এখন হয়েছে সরকারি উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্র। এই বাড়ি বাংলাদেশের এক সময়ের প্রেসিডেন্ট বিচারপতি আহসানুল্লাহ সাহেবের শশুরবাড়ি ছিল। সেখানে অনেক ঐতিহাসিক স্থাপনা আছে। পুকুরের টলটলে পানিতে শানবাঁধানো ঘাটে আমি খালি গায়ে লুঙ্গী পরে গোসল করতাম। বয়স ছিল আমার ২৭ কি ২৮। দেখতে খুব সুদর্শন ছিলাম। খালি গা দেখে পুকুরের অপর দিকের মানুষ আমার দিকে চেয়ে থাকতো। তাই, শানবাঁধানো ঘাটে বাঁশ গেড়ে কলাপাতা ভাঁজ করে বেড়া দেওয়ালাম। ফার্মাসিস্ট এর সাথে পরামর্শ করে বৈঠকখানা খালি করার সিদ্ধান্ত নিলাম। কোহিনূরের বাবাকে ডেকে বললাম “আমি সরকারি মেডিকেল অফিসার। এখানে অবস্থান করে আমি চাকরি করব। বিকেলে একটু প্রাইভেট প্রেক্টিশ করব। আপনি ধানের আটি গুলি সরিয়ে ফেলুন। এখানে চেম্বার বানাবো। রান্নাঘর থেকে ক্ষর সরিয়ে ফেলুন। এখানে রান্না করার ব্যবস্থা করব।” শুনে কোহিনূরের বাবা আমার দিকে ফেল ফেল করে তাকিয়ে রইলেন। তার গায়ে জামা ছিল না। বুকের হার সবগুলি বের করা ছিল। পেট চিমটা লাগা ছিল। নাভীর নিচে লুঙ্গী পরা ছিল। লুঙ্গীর দুই পাশ খাটো করার জন্য দুই পাশে গুজে দেয়া ছিল। উপরের পাটির দাত উঁচু ছিল। দাঁত বের করার জন্য হাসতে হয় নি। অসহায় ভাবে দাঁড়িয়েছিল আমার সামনে। যেন এক জমিদারের সামনে প্রজা দাঁড়িয়ে আছে। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকার পর কোহিনূরের বাবা বললেন
– সায়েব, আমি খুব গরীব মানুষ। জমি জমা কিচ্ছু নাই। অন্যের জমি চাষ করে কয়েকটা ধানের আটি পাইছি। এইগুলি রাখার জাওয়গাও নাই আমার। সংসারে বুড়া মা, বউ, আর দুগগা মাইয়া। আমি বাজার থাইক্কা ধান কিন্না আনি। সিদ্ধ কইরা শুকাইয়া ঢেকিতে পাড় দিয়া চাইল বানায় কোহিনূরের মায়। বেইচা যা অয় তাই দিয়া কোন মতে চালাইয়া নেই। আপ্নে যা কইছেন বুইজ্জি।
– ঠিক আছে। একটু তাড়াতাড়ি কইরেন।

আমি দেখেছি কোহিনূরের মা ও বাপকে সব সময় এক সাথে কাজ করতে। তারা সবসময় হাসিখুসি থাকতেন। হাসপাতালের সামনের খালি জায়গায় ধান শুকাতেন। বৃষ্টি এলে হাসপাতালের বারান্দায় ধান উঠাতেন। বারান্দায় রেলিং-এ বসে কতো যে সুখের আলাপ তারা করতো! এতো সুখি দম্পতি খুব কমই দেখেছি। এত ভালো মানুষ আমি কমই দেখেছি।

পরেরদিন একজন পরিপাটি লোক এলেন। পরিচয় দিলেন ঢাকায় ডিসি অফিসে চাকরি করেন। খুবই ভদ্র। তিনি বললেন
– পুকুরের দক্ষিণ পারের বাড়িটাই আমাদের। কোহিনূরের মা আমার ছোট বোন। গরীব ঘরে বিয়ে হওয়াতে বড় সমস্যায় আছি। আপনি যা করতে বলেছেন তা ঠিকই আছে। আমি ওদের বলেছি খুব শীগ্রি ঘর খালি করে দিতে। দেরী হলে ক্ষমা করে দিয়েন।
– ঠিক আছে। আমি দেখব।

কোহিনূরের বাবা আমার ঘর খালি করে দিলেন। আমি পরিষ্কার করে চেয়ার টেবিল বসিয়ে চেম্বার বানিয়ে নিলাম। কোহিনূরের দাদী কোহিনূর ও তার ছোট বোনকে নিয়ে আমার থাকার ঘরে ঢুকে পড়লেন “দাদু, দাদু” করে ডাকতে ডাকতে। দেখলাম একটা দেড় দুই বছরের বাচ্চাকে পাতালি কোলে নিয়ে দুধ খাওয়াচ্ছেন বুড়ি। ব্লাউজ ছিল না তার গায়। গ্রামের এমন বুড়িরা ব্লাউজ প্রেটিকোট পরতেন না। শুধু ১৩ হাত সুতীর কাপড় এক পেচ দিয়ে পরতেন। তিনি বাচ্চাটাকে দুধ মুখে দিয়ে রেখেছিলেন প্রকাশ্যে। এজন্য আমি তার দিকে না তাকিয়েই বললাম
– একি ঘরের ভিতরে এলেন কেন? বাইরে থাকুন।
– দাদু, আমি কোহিনূরের দাদী। খালের ঐ পাড়েই থাকি। এইটা আমার নাত্নী কোহিনূর। কোলেরটা কোহিনূরের ছোট।
– নাত্নীকে কি কেউ দুধ খাওয়ায়।
– ও আল্লাহ, দাদু, কি বুলায়। আমি বুড়া মানুষ। দুধ শুকাইয়া গেছে। অর মায় সারাক্ষণ কাম করে। আমার কোলে দিয়া রাখে। খালি কান্দে। তাই দুধের বোটা মুখে দিয়া রাখি। দুধ নাই। খালি বোটা চাটে।
– আমারে দাদু বলছেন কেনো। আমি সরকারি অফিসার।
– হেই ছোট কাল থাইকাই সায়েব দেইখা আইতাছি। এইহানেই বাড়ি। সবাই আমারে আপনা মানুষই ভাবছে। আপনের আগের সায়েব বুড়া মানুষ ছিল। এইখানে অনেকদিন ছিল। এইখান থাইকাই তার চাকরি শেষ অইছে। তারে আমি দাদু ডাকতাম। আপনেও আমার দাদু।
– ঠিক আছে, এখন যান।
– দাদু, এই মাইয়াউগগার একছের পাতলা পায়খানা অয়।
– হাসপাতাল টাইমে আইসেন।
– আমি যামু হাসপাতালে? আমি হাসপাতালে যাই না। দাদু আমাকে বাসায় থাইকাই ঔষধ দিয়া দিতেন।
– খাবার সেলাইন লাগবে। আমার কাছে নাই। এখন যান।
– আগের দাদুর সময় টিনের বেড়া গুলি অমুকে নিয়ে তার বাড়িতে লাগাইছে। চার দিক দিয়া বেড়া ছিল।

আমি ফার্মাসিস্ট-এর কাছ থেকে জেনে নিলাম কে এই টিনের বেড়া নিয়ে গেছে। তার সাথে পরামর্শ করে ডেকে এনে টিনগুলি উদ্ধার করে কলারপাতা ফেলে দিয়ে টিনের বেড়া দেয়ার ব্যবস্থা করলাম।

এরপর থেকে আমি বাসায় খাবার সেলাইন রাখতাম। কেউ পাতলা পায়খানার কথা বললে আমি সেলাইন দিয়ে দিতাম। কিন্তু কোহিনূরের কোন দিন পাতলা পায়খানা হয়েছে বলে আমি বিশ্বাস করিনি। আমি জানতাম যে তার দাদী পাতলা পায়খানার কথা বলে সেলাইন নেয়। কোহিনূরের বয়স তখন ৬ বছরের মতো ছিল। দাদীর সাথে আসতো। তার দিকে তাকালে চোখ নিচু করে মিষ্টি করে হাসতো। আমি জানতাম দাদী খাবার সেলাইন নিতেন নিজে খাওয়ার জন্য। খেয়ে তিনি শক্তি পেতেন। কোহিনূরের নাম ভাংগিয়ে নিতেন সেলাইন।

একা এক বাড়িতে থাকতাম। মাঝে মাঝে শুয়ে বিশ্রাম নিতাম। প্রকৃতি খুব শান্ত ছিল। মাঝে মাঝে কোহিনূরের বাবার কন্ঠের ডাক ভেসে আসতো “কনুরে…।” তার বাবা মা তাকে কোহিনূর না ডেকে কনুর ডাকতেন। এক বছর আমি চরামদ্দি চাকরি করেছি। শেষের চার পাচ মাস আমার ফ্যামিলি নিয়ে ছিলাম। কোহিনূরকে আমার স্ত্রী আদর করতো। কোহিনূরের মা আমার স্ত্রীর খোঁজ খবর নিতেন। আমার স্ত্রী তাকেও ভালবাসতো। এখনো আমার স্ত্রী মাঝে মাঝে চরামদ্দির স্মৃতিচারণ করার সময় কোহিনূর, কোহিনূরের মা ও বাবার কথা বলে। বলে “তারা খুব ভালো মানুষ ছিলেন। তাদের জন্য মায়া হয়। তাদের বাড়ি যেতে খাল পার হতে হতো। খালের উপর দিয়ে একটা তালগাছ না কি গাছ যেনো ফেলে সাঁকো বানানো হয়েছিল।” ওটা আসলে ছিল তাল গাছ। জোয়ারের সময় খাল পানিতে ভরে যেতো। ভাটার সময় তলা দেখা যেতো।

সেই ১৯৮৯ সনে চরামদ্দি থেকে বিদায় নিয়ে এসেছিলাম। রেখে এসেছিলাম ভালো একটি প্রতিবেশী পরিবার। এর ঠিক ১০ বছর পর ১৯৯৯ সনে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজে এক্সটারনাল হিসাবে পরীক্ষা নিতে গিয়েছিলাম। সেখান থেকে কির্তনখোলা নদী পার হয়ে কাউয়ার চর হয়ে রিক্সায় চরামদ্দি বেড়াতে গিয়েছিলাম, আমার স্মৃতি বিজড়িত কোহিনূরদের গ্রামে। সাথে নিয়ে গিয়েছিলাম বরিশালে এই মেডিকেল কলেজে ৫ম বর্ষের ছাত্র আমার ভাতিজা শহিদুল্লাহ হুমায়ুন কবীরকে (এখন এনাস্থেসিওলজিস্ট)। ঘুরে ঘুরে আগের দিনের অনেক কিছুই দেখি। সেই টিনসেড হাসপাতাল নেই। বিল্ডিং হয়েছে। সেই পরিত্যক্ত বাড়ি নেই। কোয়ার্টার হয়েছে বহুতল। পুকুরের ঘাট সংস্কার করা হয়েছে। আমার শুভাকাঙ্ক্ষী মকবুল দফাদারের ছেলে মাসুদকে নিয়ে সব দেখলাম। তুলনা করলাম দশ বছর আগেকার চরামদ্দির সাথে। কত উন্নত হয়েছে আজ! কোহিনূরের বাবাকে পেলাম সামনে। সেই আগের হাসি। সেই আগের মতোই লুঙ্গী পরা খালি গায়। আমি বললাম “আপনার বাচ্চা দুইটিকে দেখতে চাই। কোহিনূরের মা কই?” তিনি খাল পেড়িয়ে বাড়ির দিকে চলে গেলেন। কিছুক্ষণ পর কোহিনূরের মা, একজন শাড়ী পরা কিশোরী ও একজন পাজামা পরা মেয়েকে নিয়ে এলেন। কোহিনূরের দাদী এলেন কি না আমার মনে নেই। ৩০ বছর আগের কথা তো! সব মনে করতে পারি না। আমি বললাম
– কোহিনূর কই?
– এইটাই তো কোহিনূর।

সেই শাড়ী পরা কিশোরীটিই কোহিনূর। আমি চমকে গেলাম। আমার দেখা সেই হাফ প্যান্ট পরা কোহিনূর কই? সেই কোহিনূর, যার গায়ে জামা থাকতো না। গলায় থাকতো ৪ আনা দামের সীসার রুপালী চেইন। যার চোখের দিকে তাকালে চোখ নত করে মিষ্টি হাসি দিতো। সেই কোহিনূর আমাকে দেখে একটু ঘোমটা টেনে পাশ ফিরে তাকালো। কারন, এখন সে ৬ বছরের শিশু নয়, এখন ১৬ বছরের এক গ্রাম্য কিশোরী, কোহিনূর।
৪/৮/২০১৯ খ্রি.

Surzo-banur-chheleti

সূর্যবানুর ছেলেটি


সূর্যবানু ছিল নাহার নার্সিং হোমের আয়া। তখন টাংগাইল শহরে তথা টাংগাইল জেলায় মাত্র একটি প্রাইভেট ক্লিনিক ছিল এই নার্সিং হোম। এটা ছিল আকুরটাকুর পাড়ায় একটা বড় পুকুরের পাড়ে। আশেপাশে বড় বড় আমগাছ ও নারিকেল গাছ ছিল। শহরের প্রাণ কেন্দ্রে হলেও এখানে প্রাকৃতিক পরিবেশ ছিল সুন্দর, মনোরম । ক্লিনিকের মালিক ছিলেন টাঙ্গাইল শহরের পশ্চিম পাশে অবস্থিত কাইয়ামারার নিঃসন্তান মোয়াজ্জেম হোসেন ফারুক ভাই। তিনি তার স্ত্রী নাহারের নামে এই ক্লিনিক করেন পৈত্রিক সুত্রে পাওয়া জমির উপর তিন তলা বিল্ডিং-এ। পাশেই আগে থেকেই পুরাতন আধাপাঁকা একটা ঘর ছিল তাদের । সেই বাড়িটা চিকিৎসকের থাকার কাজে ব্যবহার হতো । আমি ফ্যামিলি নিয়ে সেই বাসায় থাকতাম। বাসা ভাড়া দিতে হতো না। সর্ব সাকুল্যে মাসিক বেতন ছিল আমার ১,৮৫০ টাকা। ১৯৮৮ সনের জুলাই মাসে সরকারি চাকুরি হওয়ার আগ পর্যন্ত আমি এক বছর এই ক্লিনিকে চাকরি করেছিলাম। আমার কর্তব্যনিষ্ঠা ও দক্ষতায় মুদ্ধ হয়ে ফারুক ভাই ছয় মাসের মাথায়ই আমাকে ক্লিনিকের মেডিকেল ডাইরেক্টর বানিয়ে দেন। তিনি ছিলেন জীবন বীমা কোম্পানির ম্যানেজার। অফিস ছিল ঢাকায়। থাকতেন ঢাকায়। প্রতিদিন তিনি আমাকে ফোন করে ক্লিনিকের খোঁজ খবর নিতেন। প্রথম দিকে ক্লিনিকে লোকশান হতো। আমি লোকশান কাটিয়ে লাভের মুখ দেখিয়েছিলাম। লাভের টাকা তার হাতে তুলে দিলে তিনি টাকা ফেরৎ দিয়ে বললেন “আমার ক্লিনিক থেকে লাভ নেয়ার দরকার নেই। লাভের টাকা দিয়ে ক্লিনিকের উন্নয়ন করতে পারলেই হবে।” আমি সেই টাকা দিয়ে ক্লিনিকের রিপেয়ারিং-এর কাজ করিয়েছিলাম। তিনি খুব খুশী ছিলেন আমার প্রতি। আমার সরকারি চাকরি হলে তিনি আমাকে দ্বিগুণ বেতন অফার করেছিলেন রেখে দেয়ার জন্য। আমি সেই অফার গ্রহণ করিনি।

ফারুখ ভাইর  ছোট ভাই খোকা ভাই ও তার শ্যালক দীপু ভাই ছিলেন প্রথম দিকে ক্লিনিক পরিচালনার দায়িত্বে। কর্মচারীদের বেশীরভাগই ছিল ফারুক ভাইর  প্রতিবেশী ও আত্বীয়। সামসু ও ফজলু ছিল ওয়ার্ডবয় কাম পাহারাদার। এলেঙ্গার মোতালেবকে আমি নিয়োগ দিয়েছিলাম পরে। আমীর হামজা ছিলেন রিসেপসনিষ্ট। এলেঙ্গার মজিদকে ম্যানেজার পদে আমি রিক্রুট করেছিলাম। সূর্যবানু, হ্যাপির মা (নূরজাহান) ও সাহিদা ছিল আয়া। এই তিনজনই ছিলো স্বামী-হারা অসহায় মহিলা। তাই তারা ফারুক ভাইর প্রতি কৃতজ্ঞ ছিল। হ্যাপির মার হ্যাপিকে অল্প বয়সেই বিয়ে দেয়া হয়। তাকে আমি দেখিনি। হ্যাপির পরই এক ভাই ছিলো। তাকে নিয়ে হ্যাপির মার খুব অশান্তি ছিলো। হ্যাপির আরেকটা ভাই ছিলো ছোট ছয়-সাত বছর বয়সের। হ্যাপির মা সন্তান নিয়ে ক্লিনিকে আসতোনা। সাহিদার কোন সন্তান ছিল না। সূর্যবানুর স্বামী মারা গিয়েছিল। একমাত্র সন্তান ছিল তার ছেলে আল-আমীন। সবাই ডাকতো আলামিন। সূর্যবানু ছেলে আলামিনের কথা চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বাকী জীবন বিয়ে করবে না। সূর্যবানু কাজে কর্মে ও রোগীদের প্রতি দরদী ছিলো। আমাদের বাসায় যেতো। আমার স্ত্রী তাকে পছন্দ করতো। আমার স্ত্রীর কাছে সে ছিলো ভালো মানুষ। আমার স্ত্রী ভালো মানুষ চিনতে সাধারণত ভুল করে না। সময় সময় আমার স্ত্রীকে সূর্যবানুর সাথে গল্প করতে দেখেছি।

আলামিনের বয়স ছয় কি সাত বছর ছিলো। চেহারায় মায়া মায়া ভাব ছিলো। আদর করতে ইচ্ছে হতো। কিন্তু প্রকাশ্যে আদর করতাম না। কারন, আমি জানি, শিশুরা আদর করলে মাথায় উঠে। হয়তো দেখা যাবে স্টেথোস্কোপটা আমার গলায় থেকে খুলে নিয়ে তার কানে ঢুকাবে। অথবা আমার অনুপস্থিতিতে আমার চেয়ারে বসে দোল খাবে। অথবা মুল্যবান যন্ত্রপাতি নিয়ে খেলা করবে। অথবা মিষ্টি ঔষধ নিজের মনে করে খেয়ে ফেলবে।  ফারুক ভাইর সামনে আলামিন পড়লে সূর্যবানুকে ধমক দিয়ে বলতেন “এই সূর্যবানু, আমি কতবার বলেছি না, যে বাচ্চা নিয়ে ডিউটিটে আসবি না।” সূর্যবানু মাথা নিচু করে থাকতো। ফারুক ভাই আমার দিকে চেয়ে বলতেন “ডাক্তার সাব, আপনি মানা করেন নাই সূর্যবানুকে বাচ্চা না নিয়ে আসতে?” আমি সূর্যবানুর দিকে চেয়ে চোখ রাঙ্গিয়ে বলতাম “এই সূর্যবানু, আমি কতবার বলেছি তুমি আলামিনকে নিয়ে ডিউটিতে আসবা না। তুমি আমার কথাই শুনছো না।” সূর্যবানু মনে মনে বলতো “আপনি অমন নিষ্ঠুর হতেই পারেন না। বলবেন কি করে?” আসলে বাবা-হারা মাসুম আলামিন কি মাকে ছেড়ে একা বাড়িতে থাকতে পারে? তাই, আমি কোন দিন সূর্যবানুকে মানা করিনি। আলামিন সব সময় মায়ের কাছাকাছি থাকতো। কোন জিনিসে হাত দিত না। কোন জিনিস নষ্ট করতো না। কেউ কেউ তাকে দিয়ে ফুট ফরমায়েস করাতো। আমি করাতাম না। কারন, চাকরি করতো তার মা, সে তো না।

আলামিনের একটা মাত্র শার্ট ছিলো। হাল্কা আকাশী রঙের হাফ হাতা হাওই শার্ট। সে বেশী সময়ই ঠিক ঘরে বোতাম লাগাতে পারতো না। এক ঘরের বোতাম আরেক ঘর পর লাগাতো। তাতে শার্টের নিচের দিকে একপার্ট নিচু আরেক পার্ট উচু থাকতো। আমি বলতাম “আলামিনের শার্ট নিচের দিকে সমান না। ক্যাঁচি দিয়ে কেটে সমান করে নিও।” আলামিন বুঝতে পেড়ে সুন্দর দাঁত বের করে মুচকি হাসতো।

আলামিনকে দিয়ে বেশী ফরমাইস করাতো আজিজ ভাই। আজিজ ভাই ছিলেন প্যাথলজি ল্যাবের টেকনোলজিস্ট। ক্লিনিকের নিচ তলায় ল্যাবরেটরি ছিলো। আলামিন এই ল্যাবে যাতায়াত করতো। একদিন দেখা গেলো ল্যাবের মূল্যবান একটি কাঁচের যন্ত্র ভেঙ্গে মেঝেতে পড়ে আছে। আজিজ ভাই জোড়ে সোড়ে বলছিলেন “আমার দামী নিউবার কাউন্টিং চেম্বারটা ভাংলো কে?” সারা ক্লিনিক জুড়ে তোলপাড় করতে লাগলেন। প্রফেশনাল ঝাড়ুদারের প্রতিই সবার সন্দেহ। কিন্তু সে ভগবানের নামে কসম খেয়ে বলছিলো যে সে ভাংগেনি। একদিন পর্যন্ত সন্দেহের দৃষ্টি ঝাড়ুদারের উপরই ছিল। ঝাড়ুদার বলছিলো “বাবু, হামি গারীব হোতে পারি, হামি মিছা কথা কইতে পারিনেক।” আমি আজিজ ভাইকে মানা করে দিলাম ঝাড়ুদারে প্রতি সন্দেহ না করতে। এবার আজিজ ভাইর সন্দেহ পড়লো আলামিনের প্রতি “আলামিনই ভাংছে। এই জন্যই বাচ্চা নিয়ে হাসপাতালে ডিউটিতে আসা ঠিক না।” আমি চিন্তায় পড়ে গেলাম। এবার ফারুক ভাই শুনলে আলামিনকেসহ সূর্যবানুকে তাড়াবে। আজিজ ভাই ল্যাবে এসেই ক্যাঁচ ক্যাঁচ করতে থাকেন “নিউবার কাউন্টিং চেম্বার ছাড়া আমি রক্ত পরীক্ষা করব কিভাবে? আমি যেনো কালকে থেকে আলামিনকে না দেখি।” আলামিনকে নানা ভাবে জিজ্ঞেস করে বের করার চেষ্টা করা হলো। কিন্তু না সে ভাংগেনি। সেও খুব চিন্তিত ছিল যে এবার থেকে সে তার মায়ের সাথে আসতে পারবে না। সূর্যবানুও চিন্তিত ছিলো। আমি লাঞ্চ করতে বাসায় এসেছিলাম। বাসা আর ক্লিনিক পাশাপাশি ছিল। আজিজ ভাই বারান্দায় দাঁড়িয়ে চিৎকার করে বললেন “কেউ স্বীকার করছে না যে সে ভেংগেছে। তাইলে ভাংলো কে? তাইলে কি ভূমিকম্প হয়েছিলো?” আমি জানালা দিয়ে চিৎকার করে উত্তর দিলাম “হ্যা, হ্যা, দুই দিন আগে রাতে ভূমিকম্প হয়েছিলো। সারাদেশ কেঁপে উঠেছিলো। চিটাগাং দুইটা ভবন ধ্বসে গেছে ভূমিকম্পে। আপনার টেবিলে ঝাকুনি খেয়ে কাউন্টিং চেম্বার পড়ে গিয়ে ভেংগে গেছে।” সবাই শুনে দৌড়িয়ে এলো আজিজ ভাইর কাছে। বলাবলি হাসা হাসি হচ্ছিলো। ঝাড়ুদার ও আলামিন অভিযোগ থেকে রক্ষা পেলো। খুশীতে আমি একটু বেশীই খেলাম।

একবার কোন একটা কারনে আমি এবং ফারুক ভাই মিলে একটা প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত নেই। কিন্তু সূর্যবানু বুঝতে না পেড়ে সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে। তাতে ক্লিনিকে বিশৃঙ্খলা দেখা দিতে থাকে। আমি সূর্যবানুর উপর ক্ষেপে গিয়ে উচ্চস্বরে ধমকাতে থাকি। সূর্যবানু নিরবে দাঁড়িয়ে চোখের পানি ফেলে। আলামিন সাথেই ছিলো। সে তার মায়ের মুখের দিকে চেয়ে ফোঁফাতে থাকে। হটাৎ আমার দিকে আঙুল নির্দেশ করে সিনেমার নায়কের স্টাইলে বলতে থাকে “এই আমার মায়েরে কিছু কবিনা।” শুনে আমি হতভম্ব হয়ে যাই। বুঝতে পারি সন্তানের সামনে মাকে অপমান করা ঠিক হয়নি। শুধু বললাম “যাও।” আলামিন মাকে টেনে নিতে নিতে বললো “নও, মা, এনে চাকরি করবা না।” সূর্যবানুর বিদ্রোহের কথা ফারুক ভাইর কানে গেলে ফারুক ভাই নির্দেশ দিলেন সূর্যবানুকে বরখাস্ত করতে। সবাই সূর্যবানুকে পরামর্শ দিলো তোমার চাকরি থাকতে পারে যদি আমি তাকে ক্ষমা করে দেই। আমারও ইচ্ছা ছিলো তাকে রাখবো। আমি বাসায় ছিলাম বিশ্রামে। সুর্যবানু বাসায় এসে অনেকক্ষণ অনুনয় করে ক্ষমা চাইলেন। আমি কোন কথা বললাম না। আমার স্ত্রী সূর্যবানুকে বললো “যাও, কাজ করোগে। তোমার স্যার তোমাকে মাফ করে দিয়েছে।” সূর্যবানু বুঝতে পারলো যে আপার কথাই স্যারের কথা। পরদিন সব কিছু সাভাবিক নিয়মে চললো। আলামিনকে আশ্বস্ত করার জন্য তার মাথায় হাত বুলালাম। বললাম “তোমার শার্টের উচু নিচু অংশটা ক্যাঁচি দিয়ে কেটে সমান করে নাও।” আলামিন মুচকি হাসলো।

এবার রোজা হবে গ্রীষ্মককালে। ৩০ বছর আগে সেবারও রোজা হয়েছিল গ্রীষ্মকালে। প্রচুর আম ধরেছিলো ক্লিনিকের দক্ষিণ-পূর্ব কোণার আম গাছে। কঁচি কঁচি আম। ঝোকা ঝোকা ঝুলছিলো। ছাদে উঠলে হাতের কাছেই ছিলো। পেড়ে খেতে ইচ্ছে হতো। কিন্তু গাছটা ক্লিনিকের বাইরের সীমানায় ছিলো। তাই, এই আম আমাদের ছিড়তে মানা। আমি ইফতার করার জন্য বাসায় গিয়েছিলাম। সবাই যার যার মতো করে ইফতার করছিলো। সূর্যবানুও দক্ষিণ পাসের দোতলা এক রুমে ইফতার করছিলো। আলামিন ছোট মানুষ। তাই রোজা রাখেনি। আলামিন মায়ের সাথে ছিলোনা। আমি মাত্র আজান দেয়ার সাথে ইফতার মুখে দিয়েছিলাম। ধরাম করে একটা শব্দ হলো ক্লিনিকের দিক থেকে। ‘আলামিন’ বলে সূর্যবানু চিৎকার করে থেমে গেলো। আমি ইফতার রেখে দৌড়িয়ে গেলাম ক্লিনিকের পূর্ব পাশে। দেখি আলামিন উপুর হয়ে পড়ে আছে চার হাত পা ছড়িয়ে কংক্রিটের রাস্তার উপর নিস্তেজ হয়ে। মুষ্ঠিতে আমের ডাল সহ আম। বুঝতে দেরী হলো না যে সবাই যখন ইফতারে ব্যস্ত আলামিন সেই সুযোগে ছাদে গিয়েছিলো আম চুরি করে ছিড়তে। আমের ঝোকা ধরে টান দিলে আমের ডালেও তাকে  বিপরীত দিকে টান দিয়েছিলো। আমের ডাল ছিড়ে আলামিনও পড়ে গিয়েছিল তিন তলা বিল্ডিং-এর ছাদ থেকে। অর্থাৎ চার তলা থেকে। চার তলা থেকে সিমেন্ট-এর পাকা রাস্তায় পড়ে কেউ কি বাঁচার কথা? আলামিনের পালস ও রেস্পাইরেশন পেলাম না। দু’হাত দিয়ে কোলে করে নিয়ে গেলাম দোতলার অপারেশন থিয়েটারে। ওটি টেবিলে শুইয়ে কৃত্তিম শ্বাস প্রশ্বাস দিলাম।  বুকে হার্টের উপর মাসাজ দিলাম। পালস ফিরে এলো। শ্বাস ফিরে এলো আলামিনের। অক্সিজেন চালু করে দিলাম আলামিনের নাকে। আসার সময় দেখেছিলাম সূর্যবানু বারান্দায় অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে। শব্দ শুনে জানালা দিয়ে আলামিনকে পড়ে থাকতে দেখে সূর্যবানু এক চিৎকারে অজ্ঞান হয়ে পড়ে থাকে দোতলার বারান্দায়। তাকেও ওটিতে এনে চিকিৎসা দেয়া হলো। অনেক্ষণ পর মা-ছেলের জ্ঞান ফিরে এলো। সারারাত পর্যবেক্ষণে রাখলাম। পরীক্ষা করলাম। বুকের এক্স-রে করা হলো। আল্লাহ্‌র রহমতে কোথাও কোন হাড় ভাংগা পাওয়া গেলো না। উভয়েই সুস্থ হয়ে উঠলো। মহল্লাবাসী ও সাংবাদিকরা যেন না জানতে পারে সে জন্য সবাইকে সতর্ক করে দেয়া হলো। সাংবাদিকরা যদি জানতে পাড়তো তাহলে হয়তো খবর বের হতো “৪ তলা থেকে পড়ে গিয়েও অলৌকিকভাবে বেঁচে গেছে আলামিন নামে এক ছেলে।” শোকজ খেত ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ ।

কিছুদিন পর থেকে দেখলাম আলামিন তার মায়ের সাথে আসছে না। আলামিনের কী হয়েছে জিজ্ঞেস করলে সূর্যবানু জানালো যে তাকে খোকা ভাইর ভাইয়ের ফাস্ট ফুডের দোকানে নিয়ে গেছে।
– ওখানে কি তাকে চাকরি করতে দিলে?
– না। এতো ছোট ছেলে, চাকরি করবে কেন? তাকে নাকি খোকা ভাইর ভাইয়ের মতো মনে হয় তাই তারা নিয়ে নিয়েছে। কাজ শিখুক। বড় হয়ে তো কাজ করেই খেতে হবে।

যে ছেলে সব সময় মায়ের সাথে থাকতো সে ছেলে এখন ফাস্টফুডের দোকানে ফুট ফরমায়েশ করবে। শুনে আমার কিঞ্চিৎ খারাপ লাগলো।

একদিন পুরান বাস স্ট্যান্ড-এ একটা ফাস্ট ফুডের দোকানে গেলাম কিছু কিনতে। দেখি একটা টুলে আনমনে বসে আছে আলামিন। শরীরটা শুকিয়ে গেছে। সেই জামাটি গায়। কিন্তু সোজা করে বোতাম লাগানো আছে। সেলসম্যান ধমক দিয়ে আলামিনকে বললো “এই ছেরা, ঝিম ধরে বসে আছস ক্যান, পানি দে।” আলামিন বিনম্র ভাবে উঠে গিয়ে কাস্টমারকে পানি দিলো। ঘুরে আমাকে দেখে একটা কাষ্ঠ হাসি দিলো। আমার অন্তরে কোথায় যেনো ব্যাথা অনুভূত হলো।

তারও কিছুদিন পর দেখি ভিক্টোরিয়া রোডে হ্যাপির মার ছোট ছেলে ও আলামিন রাস্তায় ঘুরে ঘুরে ফেরী করে চা বিক্রি করছে। একটা বড় ফ্লাস্কে রেডিমেড চা নিয়ে কাপে ভরে বিক্রি করছে। হ্যাপির মার ছেলের হাতে ফ্লাস্ক আর আলামিনের হাতে জগ, কাপ, গ্লাস ও টোস্ট বিস্কুট। আমাকে দেখে ইশারা দিয়ে সালাম দিয়ে দুইজনই মিটি মিটি হাসছিলো। আমিও মিটিমিটি হাসছিলাম।
– তোমরা কি করছো?
– আমরা ঘুরে ঘুরে চা বিক্রি করি। মায় টাকা দিছে দোকান করতে। ভালোই লাভ হয়। আমরা দুইজনে ভাগে দোকান করি।
(বুঝলাম তারা স্বাধীন ব্যবসা উপভোগ করছে)
– তোমরা পড়তে যাওনা?
– না। পইড়া কি হইব? স্যার, চা খাইন।
– না। চা খাব না।
– খাইন স্যার, একটা।
তারা দুইজনই আমাকে খুব করে ধরলো চা খেতে। আমি এক কাপ চা খেয়ে বললাম
– খুব ভালো হয়েছে।
– আরেক কাপ দেই, স্যার?
– আরে, না।
তারা দুইজনই খুব খুশী আমাকে চা খাওয়াতে পেরে। আমি পকেটে হাত দিতেই সমস্বরে দুইজন বলে উঠলো “দাম লাগবে না, স্যার। এমনি দিয়েছি।”

আমি কিছুতেই দাম দিতে পারছিলাম না। পরে বললাম যে এটা চায়ের দাম না এটা এমনি দিলাম তোমাদেরকে কিছু খাওয়ার জন্য। কত দিয়েছিলাম তা মনে নেই। তবে তখন আমার পকেটে বেশী টাকা থাকতো না। সারামাসের বেতন ছিলো মাত্র ১,৮৫০ টাকা।
তবে এটাই মনে হয় আলামিনের সাথে আমার শেষ দেখা। সেদিন তার গায়ে সেই শার্ট ছিল অসমানে লাগানো বোতাম। হাফ হাতা হাল্কা আকাশী হাওই শার্ট।

সূর্যবানু আমার মেয়েকে কোলে নিয়ে বেড়াতো। কোন সময় ধাওয়া কান্না শুরু করলে সূর্যবানু এসে কোলে নিতো। তার কোলে সে চুপ হয়ে যেতো। ছোট্ট মেয়েটাকে সে বুড়ি বলে ডাকতো। বেজার হয়ে থাকলে নানান ভঙ্গী করে হাসাতে চেষ্টা করতো। সরকারি চাকরি নিয়ে চলে আসার পর আমার স্ত্রী সুর্যবানুকে নিয়ে কথা বলতো। “আবার টাঙ্গাইল গেলে সূর্যবানুকে দেখে আসব” বলে মন্তব্যও করেছে অনেকবার। মাঝে মাঝে আমরা নাহার নার্সিং হোমে বেড়াতে গিয়ে সূর্যবানুকে দেখে আসতাম। সব সময়ই সুর্যবানু আমার মেয়েরা কেমন আছে কি করছে খোঁজ নিতো। আমি কখনো আলামিনের খোঁজ নেইনি। বহু বছর হয়ে গেছে সূর্যবানুর খোঁজ নেনি। বেঁচে আছে কিনা তাও জানিণনা। বেঁচে থাকলেও বয়সের ভারে তার শরীর ভেংগে যাওয়ার কথা। আলামিনের বয়স তো এখন ৩৬ সের উপরে হবে। সেকি তার মাকে কামাই করে খাওয়াচ্ছে? যে ছেলের জন্য তার জীবন উৎসর্গ করে দিয়েছে। যদি কোনদিন আলামিনের সাথে দেখা হয় তবে নিশ্চয়ই আমি আগের আলামিনকে পাবো না। পাবো কি সেই মাসুম শিশু, হাল্কা আকাশী রংগের হাফ হাতা হাওই শার্ট গায়ে অসমান বোতাম লাগানো, যেমনটি দেখেছিলাম শেষবারে ভিক্টোরিয়া রোডে আলামিনকে, সূর্যবানুর ছেলেটিকে!

২৪/২/২০১৯ খ্রি.
ময়মনসিংহ- কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ জার্নি

Types of Doctors

ডাক্তারদের প্রকারবেধ

জেনারেল প্রেক্টিশনার বা জিপি

যেসব ডাক্তার এমবিবিএস পাস করে বিএমডিসির রেজিষ্ট্রেশন নিয়ে চেম্বারে বসে সাধারণ রোগী দেখেন, তাদেরকে বলা হয় জেনেরাল প্রেক্টিশনার বা জিপি। ছোট বড় সব বয়সের রোগী তারা দেখেন। জটিল রোগী এলে প্রাথমিক পরীক্ষা করে, প্রাথমিক ভাবে রোগ নির্ণয় করে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের নিকট রেফার্ড করে থাকেন।

মেডিসিন রোগ বিশেষজ্ঞ

যেসব ডাক্তার এমবিবিএস পাস করার পর এম সি পি এস মেডিসিন, এফ সি পি এস মেডিসিন অথবা এম ডি ইন্টার্নাল মেডিসিন অথবা বি এম ডি সি স্বীকৃত সম মানের অন্য কোনো বিদেশি ডিগ্রি অর্জন করেছেন তারা হলেন মেডিসিন রোগ বিশেষজ্ঞ। শরীরের যে কোন অংগের সাধারণ রোগ বিশেষভাবে নির্নয় করে চিকিৎসা করে থাকেন। জিপিগণ যেসব রোগি রেফার্ড করেন সেসব রোগী তারা দেখেন। অন্য বিষয়ের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকও তাদের কাছে  রোগী রেফার্ড করেন। 

ads banner:

সার্জারি রোগ বিশেষজ্ঞ

যেসব ডাক্তার এমবিবিএস পাস করার পর এম সি পি এস (সার্জারি), এফ সি পি (সার্জারি) অথবা এম এস (সার্জারি) অথবা বি এম ডি সি স্বীকৃত সমমানের অন্য কোনো বিদেশি ডিগ্রি অর্জন করেছেন তারা হলেন সার্জারি রোগ বিশেষজ্ঞ। শরীরের যে কোন অংগের সাধারণ সার্জারি রোগের চিকিতসা করে থাকেন । তারা যে কোন ফোড়া কাটা, সাধারণ টিউমার কাটা, লিম্ফ নোড বায়োপ্সির জন্য কাটা, গল ব্লাডার অপারেশন, ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন ইত্যাদি করে থাকেন ।

স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ


যেসব ডাক্তার এমবিবিএস পাস করার পর এম সি পিস (গাইনি এন্ড অবস), ডিজিও, এফ সি পি এস (গাইনি এন্ড অবস) অথবা এম এস (গাইনি এন্ড অবস)  পাস করেন তাদেরকে গাইনি বা স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বলা হয়।

যরায়ু (ইউটেরাস) সংক্রান্ত রোগের চিকিৎসা ও প্রসুতি সংক্রান্ত সমস্যার চিকিৎসা করেন স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক।

অনেক মহিলা রোগী স্তন রোগ নিয়ে স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞের কাছে যান। প্রকৃতপক্ষে স্তন রোগ বিশেষজ্ঞ হলেন সার্জন বা সার্জারি রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। 

Flowers

Flowers of Rooftop Garden

ছাদবাগানের ফুল

মাধবীলতা ফুল
্বেগুন ফুল
পরাজিতা ফুল
শীম ফুল
্গোলাপ ফুল
চন্দ্রপ্রভা ফুল
এল মন্ডা ফুল
্মধুমালতী ফুল
নাগচাঁপা ফুল
মরিচ ফুল
দোলন চাঁপা ফুল
শেফালী / শিউলি ফুল
্ব্লিডিং হার্ট ফুল
জুঁই ফুল
Dheros Flower
নয়নতারা ফুল
্কাটামুকুট ফুল
্ডায়ান্থাস ফুল
্কৈলাশ ফুল
জবা ফুল
্কাটামুকুট ফুল
সজনে ফুল
্বরই ফুল
্মাধবীলতা ফুল
্ডায়ান্থাস

bnp-test

What is BNP Test, Use and Results

বিএনপি পরীক্ষা কী, কেন করা হয় এবং এর রেজাল্ট

এই ভিডিওতে, আমি বিএনপি পরীক্ষা, এর ব্যবহার এবং ফলাফলের ব্যাখ্যা করেছি । বি-টাইপ ন্যাট্রিউরেটিক পেপটাইড (বিএনপি) হল একটি হরমোন যা স্ট্রেস বা হার্ট ফেইলিউরের প্রতিক্রিয়ায় হার্ট দ্বারা নিঃসৃত হয়। আমি পরীক্ষা কিভাবে কাজ করে, হার্টের অবস্থা নির্ণয়ের ক্ষেত্রে এর গুরুত্ব এবং ফলাফলগুলি কীভাবে ব্যাখ্যা করা হয় তা কভার করি। আপনি একজন স্বাস্থ্যসেবা পেশাদার বা শুধুমাত্র মেডিকেল পরীক্ষা সম্পর্কে কৌতূহলী হোন না কেন, এই ভিডিওটি আপনাকে BNP পরীক্ষা এবং এর তাৎপর্য সম্পর্কে একটি বিস্তৃত ধারণা প্রদান করবে। In this video, I explore the BNP test, its uses, and the interpretation of results. B-type natriuretic peptide (BNP) is a hormone released by the heart in response to stress or heart failure. I tried to cover how the test works, its importance in diagnosing heart conditions, and how the results are interpreted. Whether you’re a healthcare professional or simply curious about medical tests, this video will provide you with a comprehensive understanding of the BNP test and its significance. Hashtags #BNP #NT-ProBNP #Heartfailure Keywords BNP, NT-Pro BNP, BNP Test, Congestive Cardiac failure, heart failure test, hormone, Brain Natriuretic Peptide, Pathological test, Laboratory Test, Simple health Talks, Easy Health Talks বিএনপি, এন টি প্রো বিএনপি, হার্ট ফেইলুর, হরমোন, নেটট্রি ইউরেটিক পেপ্টাইড , প্যাথলজিকেল টেস্ট,

Thanks you for reading this

hayat-sikdarer-osiot

হায়াত সিকদারের ওয়াসিয়ত

হায়াত সিকদারের ওয়াসিয়ত

সাদেকুল তালুকদার

ঝগড়াটা শুরু হয়েছিল হায়াত সিকদারের মৃত্যুর ৪০ দিন পর। অর্থাৎ চল্লিশা খাওয়ার পরদিন থেকে। মৃত্যুর আগ মুহূর্তে হায়াত সিকদার একটা ওয়াসিয়ত করে যান। বড় ছেলের শশুরের কাছ থেকে তিনি ৫ লাখ টাকা নিয়েছিলেন। সেই টাকা আর ফেরত দেননি। কেউ কেউ মনে করে নিয়েছেন এই টাকা যৌতুক হিসেবে নিয়েছেন। আবার কেউ কেউ ভেবে নিয়েছেন যে এটা ধার হিসেবে নিয়েছেন। যে হিসেবেই নিয়ে থাকুন এই টাকা ফেরত দেয়ার চিন্তাও করেননি হায়াত সিকদার। মৃত্যুর আগে হুজুরের একটা বয়ান স্মরণ হয়। হুজুর বলেছিলেন আল্লাহ তার যেকোনো হক আদায় না করলে নিজ গুণে বান্দাকে ক্ষমা করে দিতে পারেন তওবা করলে। কিন্তু বান্দার হক বান্দাকেই ক্ষমা করতে হবে। বান্দায় ক্ষমা না করলে আল্লাহয় ক্ষমা করবেন না। তাই, তিনি মৃত্যুর আগ মুহুর্তে তওবা পড়ে তার স্ত্রী ও দুই ছেলে-বৌয়ের উপস্থিতিতে ওয়াসিয়ত করেন “আমি মরে গেলে আমার ব্যাংক থেকে ৫ লাখ টাকা তুলে বড় বৌয়ের বাবাকে দিয়ে দিও। আর আমাকে মাফ করে দিতে বলো। ” এরপরে কালিমা বলতে বলতে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন।

দাফনের ৪০ দিন পর যথারীতি খরচ করে চল্লিশা খাওয়ানো হলো। পেট ভরে খেয়ে সবাই হায়াত সিকদারের আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া করে গেলেন। নিকটাত্মীয়রা সেদিন বাড়িতেই থেকে গেলেন। অনেক খাবার বেশী হয়েছিলো। সেগুলো দিয়েই রাতের খাবার খেয়ে নিলেন সবাই। বাকী বাসী ভাতে পানি দিয়ে পান্তা করার জন্য রেখে দেয়া হলো। গরমের দিনে পান্তা ভাত চুকা মানে টক হয়ে গিয়েছিলো। সেই পান্তাভাত দিয়ে চুকা খিচুড়ি রান্না করে সবাই সকালের নাস্তা খেলেন। সবাই হায়াত সিকদারের প্রসংশা করে স্মৃতিচারণ করলেন। কিন্তু বড় ছেলের বৌ মজলিসে বলে বসলেন “আব্বা মারা যাবার সময় ওয়াসিয়ত করে গেছেন তার ব্যাংক থেকে টাকা তুলে ৫ লাখ টাকা আমাকে দিয়ে দিতে।” ছোট বৌ বলে উঠলেন “মিথ্যা কথা। এই কথার কি কোন স্বাক্ষী আছে?”

বড় বৌ – কেন, আম্মার সামনেই তো বলেছেন। তুমিও শুনছো। এখন এমন কথা বলছো কেন? আম্মা, আপনেও শুনেছেন। এখন সবার সামনে বলুন।

শাশুড়ি – তাই তো বলেছেন। আমিও শুনেছি।

ছোট বৌ – আপনিও মিথ্যা কথা বলছেন, আম্মা। আপনি ভাবীর পক্ষ নিয়ে কথা বলছেন। মিথ্যা কথা আমি মানি না।

এভাবে বেশ কিছুদিন ঝগড়া বিবাদ চলতে লাগলো। বড় বৌয়ের ছোট ভাই একটু চালাক চতুর আছে। ফেইসবুক, ইউটিউব ও গুগল দেখে দেখে অনেক কিছুর উপর জ্ঞান অর্জন করে ফেলেছে এই ২০ বছর বয়েসেই। ইন্টারনেট থেকে পড়ে জানতে পেরেছে যে, সাউন্ড রিট্রাইভাল নামে একটা এপ আছে যেটা দিয়ে অতীতের কথা, যা কোন কিছু দিয়ে রেকর্ড করে রাখা হয়নি সেগুলো বের শোনা যায়। সে বুদ্ধিকরে মামুন ডিজিটাল সেন্টারে গিয়ে মানুনকে জিজ্ঞেস করলো

– আপনার কাছে কি এমন এপ আছে যা অতীতে যে কথা রেকর্ড করে রাখা হয়নি সেই কথা বের করে শোনা যায়?

– আছে তো। এই মোবাইলেই ইনস্টল করা আছে।

– আমার তালই ৪০ দিন আগে একটা ওয়াসিয়ত করে গেছেন। কিন্ত সেটা এখন অস্বীকার করছে কেউ কেউ। আপনি সেই কথা এখন শোনাতে পারবেন?

– অবশ্যই। এটাও তো আমার ব্যবসা। এজন্য আমি ফি নিয়ে থাকি। এই এপ নামানোর জন্য আমাকে ফি দিতে হয়েছে। প্রয়োজনীয় ডাটা এন্ট্রি দিলে সেই কথা শোনা যাবে।

– চলুন ভাই, আমার বোনের বাড়ি। ওখানে একটা সমস্যা হয়ে গেছে।

সমস্যাটা বুঝিয়ে বলে মনির মামুনকে নিয়ে এলো হায়াত সিকদারের বাড়ি। সাথে মসজিদের ইমাম সাব, ওয়ার্ড কাউন্সিলার ও কয়েকজন গণ্যমান্য লোক নিয়ে এলেন। মনির সমস্যাটা মামুনের কাছে তুলে ধরলো। মামুনের কাছে জানতে চাইল

– মামুন ভাই, আগে ব্যাখ্যা করে বলুন, এটায় কিভাবে অতীতের সাউন্ড রেট্রাইভ করে আনে।

মামুন – এখানে কয়েকটা সিস্টেম এক সাথে কাজ করে। গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম বা জিপিএস দিয়ে হারানো সাউন্ড উতপত্তির স্থান নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়। গ্লোবাল টাইমিং সিস্টেম দিয়ে কোন একটা নির্দিষ্ট সময় ইনপুট দিতে হয়। এন্টার দিলেই সাউন্ড তথা নির্দিষ্ট লোকেশনের অতীতের কথা শোনা যায়।

কাউন্সিলর – আমাদের মুখের কথা বলার সাথেই রেকর্ড করা না হলে সেটা বাতাসে মিলিয়ে যায়। সেই কথা এই মেশিনে উতপত্তি করে কিভাবে?

মামুন – আমরা যখন এক দেশ থেকে আরেক দেশে মোবাইল ফোনে কথা বলি সেটা একটা ইলেকট্রনিক ডিভাইস ফিজিটাল সিগনালে রুপান্তরিত করে ইথার মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেয় । যাকে বলা হয় মডুলেশন। যিনি ফোন রিসিভ করবেন তার ফোনের ডিভাইস সেই সিগনালটিকে রুপান্তরিত করে সেই কথা বা সাউন্ড তৈরি করে আমাদের শোনায় ডিমডুলেশন করিয়ে। এজন্য এটাকে মোডেম নামে ডাকা হয়। মডুলেশন-ডিমডুলেশন সংক্ষিপ্ত হয়ে মোডেম হয়েছে। আর সাউন্ড রিট্রাইভাল সিস্টেম হচ্ছে অতীতের সাউন্ড বের করে শুনায়। সব সাউন্ড ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক সিগনালে রুপান্তরিত হয়ে আমাদের অদেখা ন্যাচারাল মিডিয়াতে সংরক্ষিত থাকে। সাউন্ড রিট্রাইভাল সিস্টেম দিয়ে সেই সিগনাল থেকে আবার সাউন্ড তৈরি করা যায়।

ইমাম – আমরা জীবনে যেসব আমল করছি সেগুলো অনবরত কেরামান কাতেবীন ফেরেস্তা আল্লাহর নির্দেশে লিপিবদ্ধ করছে। মৃত্যুর পর বিচারের দিন সেই আমলনামা যার‍ যার হাতে দিবেন। সেই মিডিয়াতে বান্দার সব কর্মকাণ্ড দেখা যাবে। আপনাদের আবিস্কার দেখছি কেরামান কাতেবীনের রেকর্ডের সাথে মিল আছে। আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহর সৃষ্টি জীব হচ্ছে মানব। এই মানব জাতিই এমন জিনিস বানাতে পারলো। সেই মানবের যিনি সৃষ্টিকর্তা তার না জানি কত ক্ষমতা। সোবহান আল্লাহ!

কাউন্সিলর – মামুন, এখন কাজটা শুরু করুন। অনেক সময় লাগবে? আমার আরেকটা দরবার আছে। চুরির কেইস।

মামুন – কয়েক সেকেন্ডের ব্যাপার। চুরির কেইস ধরারও এপ আছে। হায়াত সিকদার যে স্থানে কথাগুলো বলেছিলেন সেই স্থানের কো-অর্ডিনেট ইনপুট দিতে হবে অর্থাৎ লেটিচুড, লংগিচুড এবং এল্টিচুড নাম্বার দিতে হবে।

কাউন্সিলর – এটা কি আবার?

মামুন – পৃথিবীর যেকোন স্থানের একটি পজিশন নাম্বার আছে। এটা বের করা সহজ। আপনি গুগুল ম্যাপের যে কোন পয়েন্টে ক্লিক করলে দেখবেন এর পজিশন লেখা উঠে। আপনার মোবাইল ফোন দিয়েও দেখতে পারেন। আমি যে স্থানে হায়াত সিকদার কথা বলছিলেন সেখানে মোবাইল নিয়ে গিয়ে পজিশন বের করলাম। এটা ইনপুট দিলাম। এখন তারিখ ও সময়টা বলুন, ইনপুট দেই।

বড় বৌ – এত তারিখের বিকাল চারটা সারে চারটার দিকে।

মামুন লেটিচুড, লংগিচুড, এল্টিচুড এবং তারিখ ও সময় এন্ট্রি দিয়ে রেজাল্ট বাটন ক্লিক করতেই মোবাইলে বেজে উঠল একটা শিশুর কান্না। অনেকেই বলে উঠলো “এইটা আবার কে কাঁদে?” বড় বৌ বললেন “এটা মর্জিনার বাচ্চা কান্না করছে। মারা যাওয়ার কয়েক মিনিট আগে মর্জিনা এসেছিল আব্বাকে দেখতে। সেই বাচ্চার কান্না শোনা যাচ্ছে। আপনি এর কয়েক মিনিট পর টাইম সেট করুন।” এবার শোনা গেলো পাশের মসজিদের মুয়াজ্জিন হেলালের আজান। শাশুড়ি বললেন “এই আজানের পর কথাগুলো বলছিলেন। টাইম আরেকটু বাড়িয়ে দিন।”

এবার বেজে উঠল “আমার খুব কষ্ট হচ্ছে। আমি মরে গেলে আমার ব্যাংক থেকে ৫ লাখ টাকা তুলে বড় বৌয়ের বাবাকে দিয়ে দিও। আর আমাকে মাফ করে দিতে বলো। মরে যাচ্ছি। বৌমার বাবাকে দিয়ে যা থাকে তা ইসলামী বিধান অনুসারে তোমরা ভাগ করে নিবে। আসতাগফিরুল্লাহ, রাব্বি মিন কুল্লি জাম্বেও ওয়াতুবু ইলাইহি। লা হাওলা ওয়া লা কুয়াতা ইল্লাহ। লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ। ” কান্নার রোল শোনা গেলো। সবাই সত্যটা ধরে ফেললেন। ছোট বৌ বলে উঠলেন “এই মোবাইলে যত সত্য-মিথ্যা কথা শোনা যায়। মোবাইলে ইউটিউব ভিডিওতে দেখেছি একজন আরেকজনের কন্ঠ হুবহু নকল করে বলে যাচ্ছে। ভাবী তার ছোট ভাইকে নিয়ে ষড়যন্ত্র করে এসব আয়োজন করছে আব্বার ৫ লাখ টাকা মেরে খাওয়ার জন্য। যান গা এলা।” শুনে সবাই থ মেরে বসে রইলেন।

২১ অক্টোবর ২০২৩ খ্রি.

ময়মনসিংহ

(বিজ্ঞান ভিত্তিক কল্পকাহিনি)

কপিরাইট প্রটেক্টেড।

কপি পেস্ট না করে শেয়ার বাটনে ক্লিক করে শেয়ার করুন।

chhadbagan-harun

আমার ছাদবাগানে আজকের অতিথি হারুন মাস্টার

sojne

ছাদবাগানের গাছভরা খঞ্জন জাতের বারমাসি সজনের ভিডিও | Rooftop Garden Video of khonjon

khonjon #sojne #Rooftop

Dr. Md. Sadequel Islam Talukder
MBBS, M Phil (Pathology)
বাগান,সাদেকুল,তালুকদার,ফুল,ফল,sadequel,talukder,lecture,garden,flowers,fruits,khonjon,sojne,flowers from seeds,gardening tips,planting flowers,planting perennial,flower seedlings,flower

biopsy-tissue

মানুষের মাংস কি ফ্রিজে রাখা যায়? সহজ স্বাস্থ্য কথা | Human meat can be kept in the refrigerator?

Dr. Sadequel Islam Talukder
sadequel@yahoo.com

tissue #biopsy #humansample

From this video you can learn a common mistake in keeping or storing human tissue or biopsy sample in refrigerator. histopathology test, biopsy test, cancer test etc.