পানি খেয়ে দম গেলো

পানি খেয়ে দম গেলো
(স্মৃতিচারণ)

ডাঃ মোঃ সাদেকুল ইসলাম তালুকদার

মতিউর রহমান তালুকদার ছিলেন দুই সন্তানের বাবা। বাটাজোর তালুকদার বাড়ির। চান মিয়া তালুকদার সাহেবের ভাই। তিনি আমার পরিচিত ছিলেন। আমি যখন ১৯৮৬ সনে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ইনসার্ভিস ট্রেইনিং করি সেই সময় তিনি আমাদের ইউনিটে ৭ নং ওয়ার্ডে ভর্তি ছিলেন। আমি ঐ ওয়ার্ড-এর ২২ নং বেডের রোগী পরীক্ষা করছিলাম। মতি ভাই ছিলেন ৩নং বেডে। ওয়ার্ডের গেইটের কাছেই। তিনি একুট এবডোমেন নিয়ে কনজার্ভেটিভ চিকিৎসাধীন ছিলেন। নাথিং বাই মাউথ অর্ডার ছিল। অর্থাৎ মুখ দিয়ে কিছু খাওয়া নিষেধ ছিল। আইভি ফ্লুইড দিয়ে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছিল। অর্থাৎ রগে সেলাইন দেয়া ছিল। এভাবে তাকে মুখে কিছু না দিয়ে আনুমানিক ১০-১২ দিন রাখা হয়েছিল। আমি দৈনিক তাকে কিছু সময় দিতাম।

ওয়ার্ডের অপর প্রান্ত থেকে আমি তাকিয়ে দেখলাম একজন ৭-৮ বছরের ছোট ছেলে একটা এলুমিনিয়ামের জগে করে পানি নিয়ে ওয়ার্ডে ঢুকছে। মতি ভাই তাকে হাত ইশারায় ডাকলেন। ছেলেটি মতি ভাইর কাছে গেল। জগটা হাতে নিলেন। উপর দিকে চেয়ে প্রায় এক জগ পানি নিমিষেই খেয়ে ফেললেন। প্রথম দিকে আমি বুঝতে পারি নি যে তার পানি খাওয়া নিষেধ ছিল। মনে হওয়ার সাথে সাথে আমি দৌড়িয়ে রোগীর কাছে গেলাম। ততক্ষণে এক জগ পানি খাওয়া শেষ। মতি ভাই নিস্তেজ হয়ে বিছানায় ঢলে পড়লেন। আমি তার পালস ও ব্লাড প্রেসার দেখলাম। সব শেষ। মৃত্যু হয়েছে কনফার্ম হলাম। এক নিমিষেই মৃত্যু হল তার। চোখের সামনে পরিচিত জনের মৃত্যু আমাকে অবাক করে দিল। আমার কাছে মনে হল “রোগীকে আমরা বাঁচানোর জন্য ১০-১২ দিন মুখে কিছু খেতে না দিলে কি হবে, রোগীর হায়াত শেষ। ফেরেস্তা ছেলেটিকে এক জগ পানি সহ পাঠিয়েছেন মৃত্যুর আগে পেট ভরে পানি খাওয়ার জন্য।” সবাই মন্তব্য করল “পানি খেয়েই দম গেল।”
৫/৭/২০১৮ খ্রি.

One Reply to “পানি খেয়ে দম গেলো”

  1. I intended to compose you a bit of note in order to give many thanks again considering the awesome basics you’ve contributed above. It’s generous of people like you to provide without restraint what exactly numerous people would have supplied for an electronic book to make some profit on their own, principally since you might well have tried it in the event you wanted. Those thoughts likewise worked to provide a great way to understand that the rest have the same zeal the same as my very own to understand way more with regards to this problem. I think there are thousands of more pleasurable times up front for those who take a look at your website.

Leave a Reply

Your email address will not be published.