কনসোনেন্ট


(ছোট ছোট সংলাপ)
-আজ তোমাদের টিচার আমার বড় ভাই অসুস্থ। তিনি আসতে পারে নাই। আজ আমি তোমাদের ক্লাস নেব। তোমরা ক্লাস ফোরের সবাই এসেছ?
-জি স্যার।
-ধন্যবাদ। বসো সবাই।
-তোমার নাম কি?
-আব্দুল করিম।
-বলত, বাংলাদেশের কয় ঋতু?
-স্যার, ছয় ঋতু।
-তুমি বলত, গার্ডেন মানে কি?
-এমম, এমম, এমম, ঘোড়া।
-ঠিক হয় নি।
-স্যার, অই তো আমাকে চোখের ইশারায় জানালার দিকে দেখিয়ে দিল। জানালা দিয়ে আমি বাগানে ঘোড়া দেখলাম। তাই মনে করলাম গার্ডেন মানে ঘোড়া।
-এই তুমি ওকে ইশারায় ঘোড়া দেখিয়ে দিয়েছ কেন?
-স্যার, আমি জানালা দিয়ে বাগান দেখিয়েছিলাম। ও বাগানে ঘোড়া দেখেছে।
-কানাডা কোথায়?
-স্যার, ওই যে পিছনে গিয়ে বসেছে।
-মানে?
-ওর চোখ তো একটু বাকা। তাই আমরা তাকে কানা বলি। অইজে পিছনে গিয়ে বসেছে।
-ছি, ছি। কানাকে কানা, খোরাকে খোরা বলতে নেই। তাহলে তারা মনে কষ্ট পায়। আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম ‘কানাডা দেশের কথা।’
-স্যার, এই শব্দটার উচ্চারণ কি হবে?
-এটা কি অক্ষর?
-সি
-সি-এর উচ্চারণ কি?
-ক
-এটা কি অক্ষর?
-স্যার, ও
-সি আর ও তে কি হল?
-কো।
-গুড। এটা কি অক্ষর?
-এন।
-এখন কি হল?
-কন।
-এটা কি?
-এস।
-পরেরটা ও।
-দুটা মিলে কি হল?
-সো।
-পরের টা?
-এন।
-তারপর?
-এ।
-তারপরেরটা এন।
-তিনটা মিলে কি হল?
-নেন।
-শেষেরটা?
-টি। টিতে ট হয়।
-তা হলে দেখ, প্রথম অংশ হল কন, দ্বিতীয় অংশ হল সো, শেষের অংশ হল নেন্ট। সবমিলিয়ে হল কনসোনেন্ট।
-যাও, এখন ছুটি। (মনে মনে) বেচে গেলাম এবার। ছাত্রদের দিয়েই উচ্চারণ করিয়ে নিলাম কনসোনেন্ট (CONSONANT) । আমার দ্বারা উচ্চারণ করা সম্ভব হতো না। বাবারে, আর ক্লাস নিতে আসব না। টিচারি করা খুব কঠিন।
[১০/৩/২০১৮]

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *