ভবিষ্যৎ বাহিনীর কমান্ডার

 

(স্মৃতির পাতা থেকে)

১৯৭২ সন। কচুয়া পাবলিক হাই স্কুলে ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ি। সদ্য বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। সবাই আনন্দে উৎফুল্ল। মুক্তিযোদ্ধাদের মহা আনন্দ। সবার মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা মুক্তিযোদ্ধা ভাব। বীর মুক্তিযোদ্ধা কাদেরিয়া বাহিনীর প্রধান বংঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তমকে সখিপুরের সন্নিকটে কাদেরিয়া বাহিনীর হেড কোয়ার্টার কাদের নগরে গণসম্বর্ধনা দেয়া হবে। প্রধান অতিথি ভারতীয় মিত্র বাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাম সিং বাবাজী। বিরাট Continue reading “ভবিষ্যৎ বাহিনীর কমান্ডার”

আমার নামের বিবর্তন

 

 

আমার পুর্ন নাম মোঃ সাদেকুল ইসলাম তালুকদার। এটা অনেকবার বিবর্তন হয়ে এই পর্যায়ে এসেছে। দাদা আমার নাম রেখেছিলেন মোঃ সাদেক আলী। আমি যতদুর স্মরণ করতে পারি তাতে দেখা গেছে ছোট বেলায় বিভিন্ন জন আমাকে বিভিন্ন ভাবে ডেকেছে। যেমন, সাদেক, সাদক, সাদিক, সাদগালী, সাদেগালী ইত্যাদি নামে। খেলার সাথীরা সাদগালী বলেই ডাকত। ঝগড়া শুরু হয়ে গেলে বলত সাদগালী গাদগালী। মা ডাকতেন সাদেগালী বাজান। মা Continue reading “আমার নামের বিবর্তন”

একাত্তুরে আমার দেখা মুক্তিযোদ্ধা

(স্মৃতির পাতা থেকে)
২৫শে মার্চ রাত থেকেই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী হত্যাযজ্ঞ শুরু করেছে। আমাদের পাশের গ্রামের ধলি পাড়ার ইয়াকুব আলী চাচা ইপিআর-এ চাকরি করতেন। অকু নামে পরিচিত ছিলেন। দুই তিন দিন পর বাড়িতে এলেন। ঘোনারচালা প্রাইমারী স্কুলের সামনে বসে আমিনুল ভাই ও কাদের ভাইয়ের সাথে পাকিদের ইপিআর নিধনের বর্ণনা Continue reading “একাত্তুরে আমার দেখা মুক্তিযোদ্ধা”

কারাইল নিয়ে মিছিলে গিয়েছিলাম

স্মৃতির পাতা থেকে

বংগবন্ধুর ১৯৭১ সনে ৭ই মার্চ ঐতিহাসিক ভাষনের পর সারাদেশ উত্তাল হয়ে পরে। কচুয়ার দিক থেকে একটি বিড়াট মিছিল আসছিল। আমি তখন ঘোনারচালা ফ্রি প্রাইমারী স্কুলে ৫ম শ্রেণীতে পড়ি। আমি স্কুলের সামনে দাঁড়িয়েছিলাম। সবার হাতে বাশের লাঠি ছিল। বিরাট মিছিলের সামনে নেতৃত্ব দিচ্ছেন একজন। তিনি নিরবে সামনে এগিয়ে আসছেন। পরে চিনেছি তিনি তখন কচুয়া পাবলিক হাই স্কুলের শিক্ষক এবং আওয়ামীলীগের নেতা। Continue reading “কারাইল নিয়ে মিছিলে গিয়েছিলাম”

আমার হাই স্কুল দর্শন

 

১৯৭০ সন। আমি ক্লাস ফোরে পড়ি ঘোনার চালা সরকারি ফ্রি প্রাইমারী স্কুলে। আমি একটু লাজুক প্রকৃতির ছিলাম। বারী, আমি ও লুতফর ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলাম। মেধাক্রমে ছিলাম যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় । বারী খুব ভাল ছাত্র ছিল কিন্তু খুব দুষ্টুও ছিল। লুতফরও ভাল ছাত্র ছিল। একটু কম দুষ্টু ছিল। লুতফর এখন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক বিভাগের প্রফেসর। এক সময় বিভাগের চেয়ারম্যান ছিল। আমাকে একটু চালু করার জন্য Continue reading “আমার হাই স্কুল দর্শন”

ছাপার অক্ষর

স্মৃতির পাতা থেকে

ক্লাশ থ্রিতে পড়ার সময় বাড়ীর কাজ ছিল পড়া মুখস্ত করা এবং বাংলা ও ইংরেজি ১ পাতা করে হাতের লিখা। হাতের লিখা খুব সুন্দর হলে দশে দশ পাওয়া যাবে। কেউ দশ পায় না। আমার ইচ্ছা হল দশ পেতে হবে। আমি খুব প্রকৃতি প্রেমিক ছিলাম। বাড়ীর পাশে ঝোপ জংগলে নানা রকম গাছের সাথে আমার ছিল ভালবাসা। অনেক গাছের নাম জানতাম। অনেক বন্য ফুলের নাম জানতাম। অনেক পাখীর নাম জানতাম। কোন পাখী কোন পাখীর বউ আমি Continue reading “ছাপার অক্ষর”

ঢোলেও আমার পড়া বলত

 

ক্লাস ফোর থেকে আমাদের ইংলিশ বই পাঠ্য হল। ইংরেজি বর্নমালা শিখছিলাম। B অক্ষর শিখানোর জন্য সেন্টেন্স ছিল এই রকম।
Bring.
Bring, bring.
Bring the duster.
আমার মাথায় সারাক্ষন পড়া ঘুরাফিরা করত। ১৯৬৯ সাল। সামনে ১৪ ই আগস্ট দেশের স্বাধীনতা দিবসের অনুসঠান হবে। স্কুলে স্কুলে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুসঠান হবে। বাশার ভাই মেট্রিক পাশ করে খুইংগারচালায় নতুন প্রতিসঠিত বেসরকারি প্রাইমারী স্কুলে যোগদান করেছেন। বাশার ভাইর পুর্ন নাম মোঃ ইখতিয়ার উদ্দিন Continue reading “ঢোলেও আমার পড়া বলত”

ক্লাসে সীটে বসা নিয়ে মারামারি

১৯৬৮ সনে ক্লাস টুতে পড়তাম ঘোনারচালা ফ্রি প্রাইমারী স্কুলে। আমার বয়স ৭/৮ হবে। আমাদের স্যার ছিলেন চার জন। হেড স্যার ছিলেন মোঃ খোরশেদ আলম। সেকেন্ড স্যার ছিলেন আমার চাচা মোঃ সোলায়মান তালুকদার। থার্ড স্যার ছিলেন মোঃ সাখাওয়াত হোসেন। ফোর্থ স্যার ছিলেন মোঃ আ: লতিফ। আমাদের ক্লাসে সাতটি বেঞ্চ ছিল। স্যার বসার সামনা সামনি সারিবদ্ধ তিন সারিতে ছয়টি। স্যারের ডান পাশে আড়া আড়ি ভাবে একটি। সামনের দুই Continue reading “ক্লাসে সীটে বসা নিয়ে মারামারি”

ক্লাস টুর পড়া

১৯৬৮ সনে ক্লাস টুতে উঠে বাংলা ও অংক বিষয়ের সাথে যোগ হল সমাজপাঠ। ভুগোল, পৌরনীতি ও ইতিহাস নিয়ে সংক্ষিপ্ত আকারের বই ছিল সমাজ পাঠ। ওখানে দিক নির্নয় শিক্ষার জন্য একটা লেসন ছিল। সুর্য যে দিকে উদয় হয় তাকে পুর্ব দিক বলা হয়। উদিয়মান সুর্যের দিকে ঘুরে দাড়ালে হাতের ডান দিক দক্ষিন, হাতের বাম দিক উত্তর এবং পিছনের দিক পশ্চিম। মাথার উপরের দিক উর্ধ এবং পায়ের নিচের দিক অধ। এইভাবে বই পড়ে Continue reading “ক্লাস টুর পড়া”