ঢোলের বাইদ্যে আমার পড়া

 

ঢোলে বাইদ্যে আমার পড়া  
ক্লাস ফোর থেকে আমাদের ইংলিশ বই পাঠ্য হল। ইংরেজি বর্নমালা শিখছিলাম। B অক্ষর শিখানোর জন্য সেন্টেন্স ছিল এই রকম।
Bring.
Bring, bring.
Bring the duster.

আমার মাথায় সারাক্ষণ পড়া ঘুরাফিরা করত। ১৯৬৯ সাল। সামনে ১৪ ই আগস্ট দেশের স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান হবে। স্কুলে স্কুলে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে। বাশার ভাই মেট্রিক পাশ করে খুইংগারচালায় নতুন প্রতিষ্ঠিত বেসরকারি প্রাইমারী স্কুলে যোগদান করেছেন। বাশার ভাইর পূর্ণ নাম ছিল মোঃ ইখতিয়ার উদ্দিন তালুকদার। তিনি বললেন তার স্কুলে বেশী আনন্দ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। আমি ও মজি ভাই আমাদের নিজ স্কুল ঘোনার চালা ফ্রি প্রাইমারি স্কুলের অনুষ্ঠানে না গিয়ে খুইংগারচালা স্কুলে গেলাম অনুষ্ঠান দেখতে। মজি ভাইর পূর্ণ শ্তহানেছিল মোঃ মজিবর রহমান তালুকদার। স্কুলের সামনে বিরাট মাঠ ছিল। ঘোড়ার দৌড় প্রতিযোগিতা উপভোগ করলাম। উপভোগ করলাম লাঠিয়াল খেলাসহ অনেক গ্রাম্য আনন্দদায়ক খেলা। বাড়ি থেকে সরাসরি খুইংগারচালা যাই নি। শুনলাম কালিয়া থেকে ব্যান্ড পার্টি যাবে অনুষ্ঠানে। আমি ও মজি ভাই বাশার ভাইর সাথে কালিয়া গেলাম। কালিয়া থেকে পার্টি ঢোল বাজাতে বাজাতে, ধলি, সিরির চালা, পাইন্না বাইদ ও ছোট চওনা হয়ে খুইংগারচালা গেল। আমরা পোলাপানরা হেমিলনের বংশীবাদকের পিছু যাওয়া পোলাপানদের মত ঢোলের বাদ্য শুনতে শুনতে নাচতে নাচতে অগ্রসর হচ্ছিলাম। ঢোলের বোলটা ছিল এই রকম
ধ্রিম, ধ্রিম, ধ্রিম
ধ্রিম,ধ্রিম, ধ্রিম
ধ্রিম, ধ্রিম, ধ্রিম, দিম দিম

কিন্তু আমি যেন শুনছিলাম আমার ইংলিশ পড়া। শুনছিলাম এই রকম
ব্রিং, ব্রিং, ব্রিং
ব্রিং, ব্রিং, ব্রিং
ব্রিং, ব্রিং, ব্রিং দি ডাস্টার

আজ আমার সেই কাজিন বাশার ভাই নেই। হার্ট এটাকে ইন্তেকাল করেছেন। মজি ভাই নেই। মজি ভাই রাস্তার পাশে দাড়িয়েছিলেন । রাস্তার ট্রাক তার গায়ের উপর ঊঠিয়ে দিয়ে এক্সিডেন্ট করে  মেরে ফেলেছে। মনে পড়ে মজি ভাইকে। মনে পড়ে বাশার ভাইকে । মনে পড়ে  ঢোলের বাইদ্যে আমার ইংলিশ পড়া   ।

১২/১০/২০১৭ খ্রি.