একটা দুইটা এন্টিবায়োটিক খেলে কি হয়?

একটা দুইটা এন্টিবায়োটিক খেলে কি হয়?
(স্বাস্থ্য কথা)
ডা. সাদেকুল ইসলাম তালুকদার

আমাদের শরীরের কিছু কিছু অসুখ আছে যেগুলি জীবাণুর কারনে হয়। বলা হয় ইনফেকশন। সাধারণত ব্যাক্টেরিয়া ও ফাংগাস ইনফেকশনে এন্টিবায়োটিক ও এন্টিফাংগাস ঔষধ প্রয়োগ করে ব্যাকটেরিয়া ও ফাংগাস (ছত্রাক) ধ্বংস করা হয় । এই ঔষধ প্রয়োগ করার নির্দিষ্ট মাত্রা ও সময় আছে যা একজন এমবিবিএস ডাক্তার জানেন। এই ওষুধ যদি সঠিক নিয়মে সঠিক মাত্রায় প্রয়োগ করা না হয় তাহলে এক পর্যায়ে জীবাণু এন্টিবায়োটিকের বা এন্টিফাংগাসের বিরুদ্ধে নিজেদের প্রতিরোধক্ষমতা তৈরি করে। ফলে এই ওষুধে আর কোনো কাজ হয় না। এই অবস্থাকে বলা হয় ‘এন্টিবায়োটিক /এন্টিফাংগাস রেজিস্টেন্স’। অর্থাৎ যখন ব্যাকটেরিয়ার /ফাংগাস ধ্বংস করার ক্ষেত্রে এন্টিবায়োটিকের/এন্টিফাংগাসের কার্যকারিতা থাকে না।

কেউ কেউ আছেন জ্বর, সর্দি, কাশি ও ডায়রিয়া হলে চট করে ফার্মেসী থেকে একটি বা দুইটি এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট বা ক্যাপ্সুল এনে খেয়ে ফেলেন। প্রকৃতপক্ষে এই চারটি রোগ সারাতে এন্টিবায়োটিকের কোনো প্রয়োজন নেই। এই চারটি কন্ডিশনে এন্টিবায়োটিক খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। এমনো দেখেছি, দাওয়াতে গিয়ে বেশী পরিমানে খেয়ে একটা এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট খেয়ে নিচ্ছেন। কেনো খেলেন জিজ্ঞেস করলে বলেন “যদি পেট খারাপ হয়, তাই ট্যাবলেট খেয়ে নিলাম।” পেট খারাপ হতে পারে মনে করে একটা এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট খেলেন। আবার পেট খারাপ হয়ে গেছে সেই ক্ষেত্রেও দেখেছি ফার্মেসি থেকে একটি বা দুইটি ট্যাবলেট এনে খেলেন। পেট খারাপ ভালো হলে আর খেলেন না। একদিন পর আবার পেট খারাপ হলো, আবার একটা ট্যাবলেট খেলেন। এই সব ক্ষেত্রে জীবাণুরা এই এন্টিবায়োটিকের বিরোদ্ধে প্রতিরোধক্ষমতা গড়ে তোলে। ভবিষ্যতে এই এই এন্টিবায়োটিক দিয়ে এই জীবাণুকে মারা আর সম্ভব হবে না।

যারা সবসময় ঘরের ভিতর থেকে অভ্যস্ত তাদের যদি অনেকক্ষণ রৌদ্রে দাড়া করে রাখা হয় তারা রৌদ্রে কাবু হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়বে। এমনটি মারাও যেতে পারে। কিন্তু একজন কৃষক সারাদিন রৌদ্রে কাজ করেও অসুস্থ হন না বা মারাও যান না। কারন, তিনি রৌদ্রে কাজ করে করে রৌদ্রের প্রতি প্রতিরোধক্ষমতা গড়ে তুলেছেন। জীবাণুও তেমনি একটু একটু করে এন্টিবায়োটিক পেয়ে এর বিরোদ্ধে প্রতিরোধক্ষমতা গড়ে তুলে। তাই, অসুখ বিসুখ হলে একটা দুইটা এন্টিবায়োটিক খাওয়া ঠিক না। খেলে এন্টিবায়োটিক রেজিস্টেন্স হয়। তখন এই ঔষধে আর কাজ করে না। খেতে হলে, বিএমডিসি রেজিস্টার্ড ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ফুল কোর্স এন্টিবায়োটিক খাবেন।
২৪/৮/২০১৯ খ্রী.